সন্ত্রাসী শাওনকে গ্রেফতার আল্টিমেটাম স্বানীয় ময়মনসিংহবাসীর

প্রকাশিতঃ 6:06 am | November 21, 2018 | ১৬৬

ময়মনসিংহ নগরীর চরপাড়া এলাকায় স্থানীয় ১৪ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক উজ্জ্বলের ওপর হামলা এবং অস্ত্রবাজী ঘটনায় আতংকাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে শহরে। এর প্রতিবাদে স্বানীয় এলাকাবাসী ফুসে উঠেছে।

ময়মনসিংহ নগরীর চরপাড়া এলাকায় স্থানীয় ১৪ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক উজ্জ্বলের ওপর হামলা এবং অস্ত্রবাজী ঘটনায় আতংকাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে শহরে।

মঙ্গলবার ২০ নভেম্বর দুপুরে এলাকাবাসী, চরপাড়া ক্লিনিক ব্যবসায়ী ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দরা ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে। এসময় মমেক হাসপাতালের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে চরপাড়া সড়ক প্রদক্ষিন করে। এর পর টাইমস স্কয়ারে ২৪ ঘন্টার মধ্যে শাওনের গ্রেফতারের আল্টিমেটাম দিয়ে নেতৃবৃন্দরা সমাবেশে বক্তব্য রাখেন।

স্বানীয় সূত্রমতে, সোমবার (১৯ নভেম্বর) রাতে চরপাড়া সিএনজি ষ্ট্যান্ডে চাঁদাবাজীকে কেন্দ্র করে একদল সন্ত্রাসী স্থানীয় ১৪ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আওয়ামী লীগ নেতাফজলুল হক উজ্জ্বলের ওপর হামলা চালিয়ে তার বাড়িঘরে হামলা চালায়। অভিযোগ মহানগর যুবলীগ সদস্য ইয়াসিন আরাফাত শাওনের নেতৃত্বে এ হামলা ও ভাংচুর চালানো হয়েছে। সন্ত্রাসীরা ওই এলাকার বেশ কয়েকটি বাসা, ক্লিনিক, ওষুধের দোকান ও গাড়ি ভাঙচুর করে এবং ৪ থেকে ৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। প্রতিবাদে স্থানীয় ব্যবসায়ী ও বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী প্রায় এক ঘণ্টা চরপাড়া মোড়ের সড়ক অবরোধ করে রাখে। হামলা এবং অস্ত্রবাজী ঘটনায় রাত ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত আতংকাবস্থায় থাকে।

মানববন্ধন ও সমাবেশে সাবেক কাউন্সিলর দুলাল উদ্দিন দুলাল, ১৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি শাহজালাল হৃদয়, জেলা যুবলীগ সদস্য আসাদুজ্জামান রুমেল, মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা বায়োজিদ, ১৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান মাসুম, ময়মনসিংহ ক্লিনিক মালিক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনসুর আলম চন্দন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ভিপি শান্ত, জেলা ছাত্রলীগ নেতা সাগর চৌধুরীসহ আরও অনেকেই নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন।

সমাবেশে ১৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর দুলাল উদ্দিন দুলাল বলেন, প্রশাসনের মাদক বিরোধী সাড়াশী অভিযানে গা ডাকা দেয়া মাদক গডফাদার শাওন আবার প্রকাশ্যে সন্ত্রাসী ও মাদক বানিজ্য চালাচ্ছে। এটি উদ্বেগজনক।

তিনি বলেন, চরপাড়া এলাকা বানিজ্যিক এলাকা। এখানে প্রতিনিয়ত এ সন্ত্রাসী বাহিনীর তান্ডবে আমরা ব্যবসায়ীরা অসহায় হয়ে পড়েছি। প্রশাসন এখানে কঠোর পদক্ষেপ নিতে পারছে না। এটি সাধারণ মানুষের কাছে বিস্ময় ও উদ্বেগের কারণ হয়ে দাড়িয়েছে।

তিনি আরও বলেন, চরপাড়া মোড়ে আর কোন সিএনজি, মাহেন্দ্র, টেম্পু ষ্ট্যান্ড আমরা চাই না। তিনি অচিরেই এই সিএনজি ষ্ট্যান্ড এখান থেকে উচ্ছেদ এর দাবি জানান। অন্যথায় জনগণ এটি তুলে দিতে বাধ্য হবে বলেও তিনি হুশিয়ারি উচ্চারন করেন।

জেলা যুবলীগ সদস্য আসাদুজ্জামান রুমেল বলেন, আমার চাচা আওয়ামী লীগ নেতা ফজলুল হক উজ্জ্বলের উপর সন্ত্রাসীরা যেভাবে গুলি বর্ষণ করেছে যদি গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট না হতো, তাহলে আজ আমাদের তার জানাজা পড়তে হতো। শুধু আমার চাচা নয়, চরপাড়া এলাকায় এই শাওনের সন্ত্রাসী বাহিনী সকল ব্যবসায়ীসহ সাধারণ জনগনের উপর ত্রাসের রাজত্য কায়েম করে রেখেছে। তিনি দ্রুত শাওনসহ তার সন্ত্রাসী ও মাদক সিন্ডিকেটকে আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনের প্রতি আহবান জানান। 

হামলার শিকার জেলা আওয়ামী লীগ নেতা ফজলুল হক উজ্জ্বল তার উপর হামলার প্রতিবাদে একাত্মতা প্রকাশে প্রতিবাদী জনতার প্রতি অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, আমার উপর এ বর্বরোচিত হামলা চালিয়ে হামলাকারীরা যদি মনে করেন আমি অন্যায়, মাদক, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করা ছেড়ে দিবো, তাহলে তারা ভুল করবেন। আমার শরীরে এক ফোটা রক্ত বিন্দু থাকতে আমি অন্যায়ের প্রতিবাদ করা থেকে পিছপা হবো না।