ফ্লোরিডায় ঘুরে দাঁড়াতে চায় টাইগাররা।

প্রকাশিতঃ 3:18 am | August 03, 2018 | ১২

  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ-বাংলাদেশ টি২০ সিরিজ

মিথুন আশরাফ ॥ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি২০ সিরিজের প্রথম টি২০তে হেরে গেছে বাংলাদেশ। বৃষ্টি আইনে ৭ উইকেটে হেরেছে। তাতে করে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে পিছিয়েও পড়েছে বাংলাদেশ। এখন সামনে আরও দুটি টি২০ ম্যাচ আছে। ৫ ও ৬ আগস্ট, রবিবার ও সোমবার, টানা দুইদিন ভোরে সিরিজের দ্বিতীয় ও তৃতীয় টি২০ ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় ম্যাচ দুটি বাংলাদেশ সময় সকাল ৬টায় শুরু হবে। দ্বিতীয় ম্যাচে জিতে সিরিজে সমতা এনে ঘুরে দাঁড়াতে চায় বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ টি২০ দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান যেমন বলেছেন, ‘সিরিজে ঘুরে দাঁড়াতে হলে আমাদের নিজেদের সেরা পর্যায়ে থাকতে হবে। আমরা পরের দুটি ম্যাচ নতুন ভেন্যুতে খেলব। আশা করি, সেই ভেন্যু আমাদের সঙ্গে মানানসই হবে। আমাদের এখন পরের দুটি ম্যাচের দিকে তাকাতে হবে।’ পরের ম্যাচগুলোর দিকেই তাকিয়ে সাকিব। কোনভাবে পরের দুটি ম্যাচের যে কোন একটিতে হারলেই সিরিজ হার হয়ে যাবে বাংলাদেশের। সিরিজ জিততে হলে আগে দ্বিতীয় টি২০ ম্যাচটিতে জিততে হবে। এরপর তৃতীয় টি২০ ম্যাচটি সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে পরিণত হবে। তখন যদি বাংলাদেশ জিততে পারে, তাহলে পিছিয়ে থেকেও সিরিজে জিতবে বাংলাদেশ।

সিরিজে জিতলেই টেস্ট খেলুড়ে কোন দলের বিপক্ষে একাধিক ম্যাচের সিরিজে প্রথমবারের মতো সিরিজ জিতবে বাংলাদেশ। টেস্ট সিরিজ হারের পর ওয়ানডে সিরিজ জেতা হয়েছে। ৯ বছর পর বিদেশের মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ জিতেছে বাংলাদেশ। কিন্তু টি২০ সিরিজের প্রথমটিতেই হার হয়েছে। তবে এখনও সিরিজ জেতার সুযোগ রয়েছে। আর সিরিজ জিতলেই দুর্দান্ত রেজাল্ট নিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর শেষ করতে পারবে বাংলাদেশ।

টেস্ট খেলুড়ে কোন দলের বিপক্ষে একের অধিক ম্যাচের দ্বিপক্ষীয় টি২০ সিরিজে কখনোই জিততে পারেনি বাংলাদেশ। ২০০৬ সাল থেকে টি২০ খেলছে। ২৫ টি২০ সিরিজ এর আগে খেলা হয়ে গেছে। কিন্তু টেস্ট খেলুড়ে কোন দলের বিপক্ষে একের অধিক ম্যাচের সিরিজ জেতার খাতা শূন্যই আছে। ২৫ সিরিজের মধ্যে চার সিরিজ জিতেছে বাংলাদেশ। ২০০৬ সালে প্রথম সিরিজেই বাজিমাত করেছে। সেটি ছিল এক ম্যাচের সিরিজ। এরপর ২০১১ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এক ম্যাচের টি২০ সিরিজে, ২০১২ সালে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি২০ সিরিজে, ২০১৫ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে এক ম্যাচের টি২০ সিরিজে জিতেছে বাংলাদেশ। বাকি ২১টির মধ্যে ৬টি টি২০ সিরিজে ড্র করেছে। হেরেছে ১৫টি সিরিজে। এবার বাংলাদেশ ওয়ানডে সিরিজ থেকে প্রেরণা পেয়েছে। কিন্তু সেই প্রেরণা প্রথম টি২০তে কাজে লাগেনি। দ্বিতীয় এবং তৃতীয় টি২০তে কী তা কাজে লাগবে?

সাকিব আগেই জানিয়েছিলেন, ‘আমরা টি২০ সিরিজটা নিয়ে অনেক আশাবাদী। এর বড় কারণ হচ্ছে, আমরা ওয়ানডে সিরিজটা বেশ ভাল করলাম। দেশের বাইরে নয় বছর পর একটা ওয়ানডে সিরিজ জেতা আমাদের জন্য বড় একটা অর্জন।’ সঙ্গে যোগ করেছিলেন, ‘আশা করি, এই আত্মবিশ্বাস টি২০ সিরিজে আমাদের কাজে আসবে। সবাই এই আত্মবিশ্বাস নিয়েই খেলতে পারবে।’ সেই আত্মবিশ্বাসের ঝলক প্রথম টি২০তে দেখা যায়নি।

ব্যাটসম্যানরা নিজেদের মেলে ধরতে ব্যর্থ হয়েছেন। শুরুতেই তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার দলকে বিপদে ফেলেছেন। এরপর লিটন কুমার দাস ও সাকিব আল হাসান এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেও পারেননি। ১০ ওভারের আগেই ৯০ রান হয়ে যাওয়ার পরও মুশফিকুর রহীমের আউটে দল আরও বিপদে পড়ে যায়। শেষপর্যন্ত মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের ৩৫ রানে ১৪৩ রানের বেশি করতে পারেনি বাংলাদেশ। এরপর আসে বৃষ্টি। খেলা বৃষ্টি আইনে হয়। ১১ ওভারে জিততে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সামনে ৯১ রানের টার্গেট দাঁড় হয়। সহজেই ১১ বল বাকি থাকতেই ৩ উইকেট হারিয়ে তা করে ফেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সহজ জয় পায়। বাংলাদেশ ব্যাটসম্যানরা যে ব্যাটিং দেখিয়েছেন, তাতে আত্মবিশ্বাসের ঝলক মিলেনি। এমন চলতে থাকলে পরের দুটি ম্যাচও জেতা কঠিন হয়ে পড়বে।

এখন ওয়েস্ট ইন্ডিজে নয়, খেলা হবে যুক্তরাষ্ট্রে। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় সেন্ট্রাল ব্রোওয়ার্ড রিজিওনাল পার্ক স্টেডিয়ামে পরের দুটি টি২০ ম্যাচ হবে। এ স্টেডিয়ামে এর আগে ক্রিকেটের শুধু টি২০ খেলাই হয়েছে। ৬টি টি২০ হয়েছে। ২০১০ সালে দুটি ম্যাচে নিউজিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কা পরস্পরের মুখোমুখি হয়। পরের চারটি ম্যাচ খেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ২০১২ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি ম্যাচেই জিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ২০১৬ সালে ভারতের বিপক্ষে একটি ম্যাচ জিতে, আরেকটি ম্যাচের রেজাল্ট হয়নি। এখন পর্যন্ত এ ভেন্যুতে কোন ম্যাচ হারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ। নিজেদের চেনা মাঠই। বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো এ ভেন্যুতে খেলে এখন কেমন করে, সেটিই দেখার বিষয়। তবে সিরিজে ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ ভালভাবেই আছে। সেই সুযোগ কাজেও লাগাতে চায় বাংলাদেশ। সাকিব আল হাসানের যেহেতু সিপিএল খেলে এই ভেন্যুতে খেলার অভিজ্ঞতা আছে; তা দলেরও সুবিধা বয়ে আনতে পারে। সেই সুবিধা নিতে পারলেইতো হয়ে গেল। সিরিজে ঘুরে দাঁড়ানোর যে আশা, তা দ্বিতীয় টি২০তে পূরণও হয়ে যেতে পারে।